বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০

ব্রেকিং নিউজ


বিষয় :

শুরু হলো অগ্নিঝরা মার্চ


১ মার্চ, ২০২০ ৯:১৩ : পূর্বাহ্ণ

পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সাহসী স্মৃতি নিয়ে এসেছে মার্চ।নতুন পতাকা, বজ্রকণ্ঠ ঘোষণা ও কালরাত- সব মিলিয়ে নানা ঘটনা প্রবাহে উত্তাল ছিল একাত্তরের মার্চ মাস।মৃত্যুর বিভীষিকা পেরিয়ে সশস্ত্র সংগ্রামে ঝাঁপ দেয়ার অনন্য ইতিহাস রচিত হয়েছিল এই মার্চেই।রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিয়ে বাঙালির জীবনে অন্তর্নিহিত শক্তির উৎস এই মার্চ ।

১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষার জন্য যে আগুন জ্বলে উঠেছিল, মার্চে এসে সেই আগুন যেন বাংলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে ।এরপর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬-এর ছয় দফা এবং ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের সিঁড়ি বেয়ে বাঙালির জীবনে নিয়ে আসে নতুন বার্তা একাত্তরের মার্চ ।

এ মাসেই দেশজুড়ে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন বাংলার স্বাধীনতাকামী জনতা।একটি তর্জনির নির্দেশে গর্জে ওঠেছিল পুরো জাতি। সাতই মার্চ জাদুকরী ভাষণে জাতিকে দীপ্ত মুক্তিসেনানিতে রূপান্তরিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭১-এর ৭ মার্চ তৎকালীন রেসর্কোস ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) দেয়া সেই ঐতিহাসিক ভাষণের সময় মুহুর্মুহু গর্জনে উত্তাল ছিল জনসমুদ্র। লাখো কণ্ঠে গর্জে ওঠা একই আওয়াজ উচ্চারিত হতে থাকে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে।

এরপর নানা ঘটনা পেরিয়ে ২৫ শে মার্চ বাঙালি জীবনে আসে কালো রাত। রাতের আধাঁরে ঘুমন্ত নিরীহ বাঙালির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি বাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামে কর্তৃক পরিচালিত পরিকল্পিত গণহত্যার মাধ্যমে বাঙালির রাজনৈতিক অধিকার আদায়ের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে নির্মূল করতে উদ্যত হয় কুখ্যাত পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। এই গণহত্যা ছিল পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকদের নির্দেশে সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত এবং  ১৯৭০ এর নভেম্বরে সংঘটিত ‘অপারেশন ব্লিটজ’-এর পরবর্তি অনুষঙ্গ। হানাদার পাকিস্তানিদের পরিকল্পনা অনুযায়ী ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে নির্বিচারে হাজারো মানুষকে হত্যা করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে  হত্যা করে ছাত্র-শিক্ষককে।অনেক স্থানে নারীদের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়।ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয় বাংলাদেশ।পাকিস্তানি গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞের মধ্যে জেগে উঠে বাঙালি জাতি ।সাধারণ বাঙালি হয়ে উঠে অসাধারণ যোদ্ধায়।শুরু হয় বাঙালির স্বাধীনতা অর্জনের সশস্ত্র যুদ্ধ। এরপর দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তাক্ত রণাঙ্গন পেরিয়ে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশের।

এদিকে,স্বাধীনতার ৪৯ বছর পর এবারের আগুনঝরা মার্চ নতুন আবেদন নিয়ে জাতির সামনে এসেছে। তার কারণ ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপন।

বিএনএনিউজ২৪.কম/আর করিম চৌধুরী,এস জি নবী

 

Print Friendly and PDF

আরো সংবাদ

আর্কাইভ
May 2020
F S S M T W T
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30