ব্রেকিং নিউজ

বাবার কোলেই শিশু তুহিন মধ্যযুগীয় কায়দায় খুন!


15 October, 2019 8:43 : PM

জমিজমা নিয়ে বিরোধ কোন বাড়িতে বা গ্রামে নেই? সর্বত্র মানুষ আরো জমি চায়,জনবল অর্থবল থাকলেতো কথাই নেই। প্রতিবেশিদের জমি জোর করে দখল করা গ্রামের অনেক হিংসুক মানুষের কাজ।

তাই বলে নিজের ছেলেকে খুন করে আরেকজনকে ফাসাতে পারে বাবা! সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউরা গ্রামে যা ঘটে গেল তা রীতিমত বর্বরতা। পাঁচ বছরের শিশু তুহিন মিয়াকে নির্মমভাবে হত্যার ঘটনায় তার পরিবারের লোকজন জড়িত বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তুহিনের বাবা আবদুল বাছির, চাচা, চাচি ও এক চাচাতো বোনকে থানায় আনে পুলিশ। এরপর টানা কয়েক ঘণ্টা তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, গ্রামের অন্যদের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে আবদুল বাছিরের পরিবারের বিরোধ ও মামলা রয়েছে। এর জের ধরেই অন্যদের ফাঁসাতে পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘কারা, কখন, কীভাবে এই ঘটনা ঘটিয়েছে, সব আমরা জানতে পেরেছি।

রাজানগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সৌম্য চৌধুরী বলেন, ‘এমন বর্বরতা আগে কখনো দেখিনি। দোষী ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হোক।’ কেজাউরা গ্রামে শিশু তুহিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশটি একটি কদমগাছে ঝুলছিল। তার দুই কান ও লিঙ্গ কাটা ছিল, পেটে ঢোকানো ছিল দুটি ছুরি। চার ভাইবোনের মধ্যে তুহিন ছিল দ্বিতীয়।

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় ৬ বছরের শিশু তুহিনকে নৃশংসভাবে হত্যা করে বাবা, চাচাসহ পরিবারের সদস্যরা। ঘুমন্ত তুহিনকে কোলে করে ঘরের বাইরে নিয়ে আসেন বাবা। আর বাবার কোলেই ঘুমন্ত অবস্থায় শিশু তুহিনকে ছুরি দিয়ে গলাকেটে খুন করেন চাচা নাসির উদ্দিন।

মঙ্গলবার(১৫ অক্টোবর)রাতে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান  তুহিন হত্যার বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে  বলেন, পুলিশের কাছে শিশু তুহিন হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন বাবা ও চাচা। আর সুনামগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে তুহিনের চাচা নাছির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার। তারা এ হত্যার ঘটনায় জড়িত বলে স্বীকার করেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, রোববার রাত আড়াইটার দিকে ঘুমন্ত তুহিনকে কোলে করে ঘরের বাইরে নিয়ে যান বাবা আবদুল বাছির। পরে বাবার কোলের মধ্যেই তুহিনকে ছুরি দিয়ে গলাকেটে খুন করেন চাচা নাছির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার। পরে তুহিনের কান ও লিঙ্গ কেটে গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়। তিনি বলেন, বাবার সামনেই শিশু তুহিনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় তুহিনের বাবাসহ থানায় নিয়ে পাঁচজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে পূর্বশত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই তুহিনকে খুন করা হয় বলে পুলিশকে জানান বাবা ও চাচা।

গত রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সকালে পুলিশ গিয়ে ওই শিশুটির লাশ উদ্ধার করে। ওই শিশুর কান ও লিঙ্গ কেটে নেওয়া হয়েছে। পুলিশ শিশুর বাবা-চাচা সহ ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। হতভাগ্য শিশুটির নাম তুহিন মিয়া। তার বাবা আবুদল বাছির। পেশায় কৃষক।

লাশের বিভৎসতা দেখে ভয়ে আঁতকে ওঠেন গ্রামবাসী। ৫ বছরের এই শিশু’র লিঙ্গ ও একটি কান কেটে সড়কে ফেলে রাখা হয়েছে। গলা কেটে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি ছুরা শিশুর পেটে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। বাড়ির পাশের গাছের ডালে রশি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে শিশুটির লাশ। এমন নৃশংশ হত্যাকা- আগে কখনো দেখে নি এলাকাবাসী।

হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরা দুটিতে কলম দিয়ে দুই জনের নাম লেখা হয়েছে। নাম দুটি হচ্ছে সুলেমান ও সালাতুল। এই দুই ব্যক্তি একই গ্রামের বাসিন্দা।তারা তুহিনের বাবার প্রতিপক্ষ।

রাজাননগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শাহজাহান মিয়া বলেন, এরকম ঘটনা আমাদের এলাকায় আগে কখনো ঘটে নি। মানুষে মানুষে বিরোধ-শত্রুতা থাকতে পারে। এখানে শিশুর কি অপরাধ।

মামলায় প্রতিপক্ষ ফাসাতে মিথ্যা নাটক সাজানোর চেষ্টা :

আবদুল বাছিরের ভাই আবদুল মছব্বির বলেন, জমিজমা নিয়ে গ্রামের কিছু মানুষের সঙ্গে আমাদের বিরোধ আছে। কিন্তু কে বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, আমরা বুঝতে পারছি না। যেই করে থাকুক আমরা তাদের শাস্তি চাই।

নিহত শিশু তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির বলেন, বেশ কিছু দিন থেকে গ্রামের একটি পক্ষের সাথে আমাদের বিরোধ আছে, তাই বলে আমার ছেলেকে এমন নৃশংসভাবে হত্যা করবে কেউ, তা আমার বিশ্বাস হয় না। তিনি বলেন আমার বড় ছেলে জকিনগর, তার নানা বাড়িতে বেড়াতে গেছে। আমি তুহিনসহ আমার অপর ছেলেকে নিয়ে রাতে এক বিছানায় ঘুমাতে যাই। রাত সাড়ে তিন টার দিকে আমার ভাতিজি সাবিনা মূল ঘরের দরজা খোলা দেখে ডাকাডাকি করলে, আমি জেগে দেখি আমার তুহিন নাই। পরে আমরা সবাইকে নিয়ে তার খোঁজ করতে থাকি। এরমধ্যে বাড়ির সামনের মসজিদের পাশের সড়কে রক্ত দেখতে পাই। পরে পাশে কদম গাছের সাথে দেখি ঝুলানো তুহিনের লাশ ।

আব্দুল বাছির জানান, পনের দিন পূর্বে তার এক কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করেছে। রোববার রাতের খাবার খেয়ে নিহত তুহিন ও তার ছোট ভাইকে নিয়ে সামনের কক্ষে তিনি ও নবজাতককে নিয়ে তার মা পেছনের কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। রাত দেড়টার দিকে ঘুম ভাঙলে ঘরের বাইরে পশ্রাব করে এসে তুহিনের উপর কাঁথা দিয়ে আবার ঘুমিয়ে পড়েন তিনি।

কাউকে সন্দেহ করেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি যা দেখি নি, তা কিভাবে বলবো’।

এলাকাবাসী জানান, গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে একই গ্রামে সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন’এর সঙ্গে নিহত তুহিনের পরিবারের বিরোধ চলে আসছে। এর আগেও এই গ্রামে খুনের ঘটনা ঘটেছে। তবে এমন নৃশংস হত্যকাণ্ড ঘটে নি।

মানবিক মূল্যবোধের চরম অবনতি-জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় শিশু তুহিন হাসান (৬) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম। তিনি বলেন, ‘কমিশন লক্ষ করছে, সমাজের কিছু সংখ্যক মানুষের মানবিক মূল্যবোধের চরম অবনতির ফলে বিভিন্ন ধরনের জঘন্য অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।

বিএনএনিউজ২৪.কম/এসজিএন

Print Friendly and PDF

আরো সংবাদ

আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
« সেপ্টেম্বর   নভেম্বর »
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১