ব্রেকিং নিউজ

চবিতে ছাত্রলীগের দুই নেতাকে মারধর,অবরোধের কর্মসূচি


১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ৮:২৩ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই নেতাকে মারধর করেছে আরেক পক্ষের কর্মীরা। রবিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হাটহাজারীর এগারোমাইল এলাকায় এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ছাত্রলীগ নেতা নাসিরউদ্দিন সুমন এবং আল নাহিয়ান রাফির উপর হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ধ্যার পর থেকেই ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করে। দুই গ্রুপের কর্মীরা ক্যাম্পাসে জড় হয়ে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া এবং সংঘর্ষের প্রস্তুতি নেয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা পুলিশের ৫টি এবং প্রক্টরিয়াল বডির একটি গাড়ি ভাংচুর করে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান ও দুই -তিন রাউন্ড টেয়ারশেল ছোড়ে পুলিশ।

এদিকে মারধরকারীদের গ্রেফতার এবং বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক সিরাজ উদ দ্দৌল্লাহ’র পদত্যাগের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের অবরোধের ডাক দিয়েছে শাখা ছাত্রলীগের একাংশ। মারধরের শিকার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি নাসিরউদ্দিন সুমন এবং জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১২-১৩ সেশনের শিক্ষার্থী আল নাহিয়ান রাফি । মারধরের শিকার দুইজন উপ- গ্রুপ সিএফসি’র নেতা এবং শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল ও শিক্ষা উপ-মন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী। মারধরকারীরা উপ-গ্রুপ ভার্সিটি এক্সপ্রেস (ভিএক্স) এবং সিটি মেয়র আজম নাসির উদ্দিনের অনুসারী। মারধরের শিকার দুজনকেই আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ( সিএমসি) পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা সিরাজ উদ দ্দৌল্লাহ’র মদদে তাপস হত্যা মামলার আসামি মিজানুর রহমান বিপুলসহ বেশ কয়েকজন সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণদিত ভাবে ছাত্রলীগ নেতা নাসিরউদ্দিন সুমন এবং আল নাহিয়ান রাফির উপর হামলা করে । হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বহিষ্কার এবং ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক সিরাজ উদ দ্দৌল্লাহ পদত্যাগ না করা পর্যন্ত অবরোধ চলবে।

ভিএক্স গ্রুপের নেতা প্রদীপ চক্রবর্তী দুর্জয় বলেন, ঘটনাটা গত দুই-তিনদিন ধরে চলমান। গতদিন আব্দুর রব হলে রেজাউল হক রুবেল (শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি) ভাইয়ের সমনেই আমাদের কর্মীদের মারধর করে তার অনুসারীরা। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে তার উচিত ছিলো কার অনুসারী তা না দেখে মারধরকারীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া। তিনি তা না করায় জুনিয়র কর্মীদের ভিতরে একটা ক্ষোভ দেখা দেয়। সেই ক্ষোভ থেকেই নাসিরউদ্দিন সুমন এবং আল নাহিয়ান রাফিকে মারধর করেছে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা (উত্তর) পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মশিউদ্দৌলা রেজা বলেন, আমাদের বেশ কয়েকটি গাড়ী ভাংচুর করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আমরা জলকামান এবং দুই-তিন রাউন্ড টিয়ারশেল ছুড়ি। যারা এঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর এস এম মনিরুল হাসানের সাথে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

বিএনএনিউজ২৪ডটকম/ নাজমুস সায়াদাত /এসজিএন

Print Friendly and PDF

আরো সংবাদ

আর্কাইভ
December 2019
F S S M T W T
« Nov    
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930