সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০

ব্রেকিং নিউজ

প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদকে মনোনীত ইবির আট শিক্ষার্থী যা বললেন


১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ৭:০০ : অপরাহ্ণ

ইবি প্রতিনিধিঃ  ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আট শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদক-২০১৮ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন। আটটি অনুষদের সর্বোচ্চ ফলাফল কারীরা এ পদক পেতে যাচ্ছেন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

অনুষদ গুলোর মধ্যে মনোনীত শিক্ষার্থীরা হলেন, ধর্মতত্ত্ব ও ইসলাম শিক্ষা অনুষদভুক্ত দাওয়াহ এ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী জাকারিয়া সিজিপিএ ৩.৯৪, কলা অনুষদভুক্ত আরবী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের শিক্ষার্থী জাহিদুল ইসলাম সিজিপিএ ৩.৯৪, আইন অনুষদভুক্ত আইন বিভাগের শিক্ষার্থী লাবনী খাতুন সিজিপিএ ৩.৭৬, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী আলমগীর হোসেন সিজিপিএ ৩.৮৬, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদভুক্ত ফিনান্স এ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী সিজিপিএ শাহবুব আলম ৩.৯০, বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার মোর্শেদ সিজিপিএ ৩.৮৭, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদভুক্ত ইনফরমেশন এ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী এ এস এম ইমরান হোসেন ভূঁইয়া সিজিপিএ ৩.৯২, জীব বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ফলিত পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি বিভাগের শিক্ষার্থী নাজনীন আক্তার সিজিপিএ ৩.৯৪ পেয়ে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক- ২০১৮ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন।

ধর্মতত্ত্ব ও ইসলাম শিক্ষা অনুষদের শিক্ষার্থী জাকারিয়া বলেন, “সকল প্রশংসা আল্লাহ তাআলার জন্য যিনি আমাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক স্বর্ণপদক প্রাপ্তির মনোনীত হওয়ার সৌভাগ্য প্রদান করেছেন। আমার মা-বাবাসহ যারা আমার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে এগিয়ে যাওয়ার সাহস ও উৎসাহ জুগিয়েছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। প্রবল আকাঙ্ক্ষা ধৈর্য এবং আমার সফলতা ভালো ফলাফলের মূলমন্ত্র হিসেবে কাজ করেছে। আমি যেন দেশ ও জাতির কল্যাণে সর্বদা নিয়োজিত থাকতে পারি সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।”

কলা অনুষদের শিক্ষার্থী জাহিদুল ইসলাম বলেন, “আলহামদুলিল্লাহ মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে আমি স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশে প্রথম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তথা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদভুক্ত আরবী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের শিক্ষার্থী হিসেবে স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর/সিজিপিএ অর্জনের স্বীকৃতি স্বরুপ প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক ২০১৮ প্রাপ্তির জন্য মনোনীত হতে পেরে সর্বপ্রথম কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি মহান আল্লাহ তায়ালার প্রতি।

আরো কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আমার মা-বাবার প্রতি এবং আমার মাথার তাজ সমতুল্য সম্মানিত শিক্ষক মন্ডলীর প্রতি। যাদের নিস্বার্থ ভালোবাসা ও আন্তরিক প্রচেষ্টায় আজ আমার এ প্রাপ্তি। হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা আমার সকল বন্ধুদের প্রতি যাদের উৎসাহ উদ্দীপনায় আজকের এ সাফল্য। এ সাফল্যের স্বপ্ন আমি সে দিন দেখে ছিলাম যে দিন বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হয়ে আমার সম্মানিত শিক্ষকদের মাধ্যমে জানতে পারলাম যে অনুষদ থেকে স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় সর্বোচ্চ সিজিপিএ অর্জন কারীকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্নপদক প্রদান করা হয়। সে দিনের স্বপ্ন আজ বাস্তবে রুপ নিচ্ছে। দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করতে সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার স্বপ্নও সে দিন আমি দেখে ছিলাম। ভবিষৎ জীবনে আমার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশ ও জাতির নিকট দোয়া প্রত্যাশী।”

আইন অনুষদের শিক্ষার্থী লাবনী খাতুন বলেন, “প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক মনোনীত হতে পেরে আমার খুবই ভালো লাগছে। আমার সফলতার জন্য সৃষ্টিকর্তার প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি আমার পিতা-মাতা, প্রিয় শিক্ষকবৃন্দ এবং সহপাঠীদের প্রতি। কারণ তাঁঁদের সর্বাত্মক সহযোগিতা ছাড়া আমি এ পর্যন্ত আসতে পারতাম না। আগামী দিনে আমার প্রত্যাশা সৃষ্টিকর্তা যেন আমার স্বপ্ন পূরণ করেন এবং সর্বোপরি একজন একজন ভালো মানুষ হতে পারি। প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক মনোনীত হতে পেরে এবং নারী শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্র সৃষ্টির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।”

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থী আলোমগীর হোসেন বলেন, “প্রথমত আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানাই। পিতা-মাতা শত কষ্টের মধ্যেও আমাকে পড়াশোনা করিয়ে ছিলেন। আজ আমি এ পর্যন্ত আসতে পারবো ভাবিনি। ছাত্র জীবনে যখন লেখক পরিচিতি পড়তাম দেখতাম কেউ কেউ প্রথম শ্রেণিতে প্রথম, এটাই আমার ডিপার্টমেন্টে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হওয়ার প্রথম স্বপ্ন বুনে দেয়। তারপর আমার ডিপার্টমেন্টের সকল শিক্ষকবৃন্দ অনেক উৎসাহ দেন। প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদকের জন্য মনোনীত হয়ে আমি অনেক খুশি এবং এটা আমার একাডেমি জীবনে সর্বোচ্চ পাওয়া। শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে আমার অনেক ভালো লাগে।”

ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের শিক্ষার্থী শাহবুব আলম বলেন, “সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে আমার এই সফলতার জন্য আমি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করছি আমার বিভাগের শিক্ষক মন্ডলীর প্রতি কারণ তাদের পাঠদান, দিক নির্দেশনা ও অনুপ্রেরণা আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমি ধন্য হয়েছি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগে ভর্তি হয়ে। আমার এই অর্জনের পিছনে আমি আমার বাবা-মায়ের অবদান কখনও ভুলতে পারব না। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন যেন দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারি।”

বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার মোর্শেদ বলেন, “আমার এ স্বর্ণপদক পাওয়ার জন্য আমার বিভাগের শিক্ষকদের অনেক ধন্যবাদ জানাই । একই সাথে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি আমার পিতা মাতার প্রতি কারণ তাদের সহযোগিতা ছাড়া আমার এ পর্যন্ত আসা হতো না । আমি যে পরিসংখ্যান নিয়ে পড়েছি ভবিষ্যতে কর্মক্ষেত্রেও এ পরিসংখ্যান এর সাথে থাকার আশা রয়েছে। পরিশেষে বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানাই আমাকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদকে মনোনীত করার জন্য।”

প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের শিক্ষার্থী এ এস এম ইমরান হোসেন ভূঁইয়া বলেন, “অসম্ভব ভালো লাগছে। কখনো ভাবিনি, ভাগ্য বিধাতা আমার জন্যে এতটা সম্মান রেখেছেন, আলহামদুলিল্লাহ। কঠোর পরিশ্রম আর সদিচ্ছা থাকলে আল্লাহ অবশ্যই ভালো প্রতিদান দেন। সামনের দিন গুলোতে আমি “Blockchain Technology” বিষয়ে গবেষণা ও উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহী। আসলে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে অনেকেই আমায় সাহায্য করেছেন। কিন্তু যাদের কথা না বললেই নয়, তারা হলেন আমার বাবা-মা, আমার পথ প্রদর্শক শ্রদ্ধেয় শিক্ষক মন্ডলী। আর একটা নাম বলতেই হয়, যে আমায় বিশ্বাস করিয়েছে, আমি পারব, সে বন্ধু আলি হাসান। পরিশেষে, সকলের নিকট দোয়াপ্রার্থী।”

জীব বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থী নাজনীন আক্তার বলেন, “আমি যে সম্মান পেয়েছি সেটির জন্য আমার পরিবার এবং আমার বিভাগের প্রিয় শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আগামী দিনে যেন দেশের সেবা করতে পারি এমনটি আমার প্রত্যাশা।”

উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বলেন, “এ বছর আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের আটটি অনুষদ থেকে যে ৮ জন শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে স্বর্ণপদক পেতে যাচ্ছে এটি সত্যি একটি দুর্লভ ও সৌভাগ্যের ব্যাপার। এই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিভাবান শিক্ষার্থীরা আগামী দিনে সৎ এবং যোগ্য হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তুলবে । একই সাথে জাতি গঠনে নিজেদের মেধা এবং যোগ্যতাকে কাজে লাগাবে তাদের কাছে এটি প্রত্যাশা করি।”

উল্লেখ্য, ২০০৫ সাল থেকে চালু হওয়া প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক এ পর্যন্ত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৪২ জন শিক্ষার্থী এ গৌরব অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি অনুষদের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে সর্বোচ্চ ফলাফল কারীদের এ স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এ বছর ইবির আট শিক্ষার্থীসহ সারা বাংলাদেশের সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১৭২ জন শিক্ষার্থী এ স্বর্ণপদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

বিএনএ নিউজ২৪.কম/তারিক সাইমুম/জেবি/এসজিএন

Print Friendly and PDF

আরো সংবাদ

আর্কাইভ
January 2019
F S S M T W T
« Dec    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031